কড়ানজর
  • September 28, 2020
  • Last Update August 15, 2020 7:07 am
  • গাজীপুর

সিনহা হত্যা মামলায় চার আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু – কারাগারে কয়েদিদের ক্ষোভের মুখে সাবেক ওসি প্রদীপ

সিনহা হত্যা মামলায় চার আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু – কারাগারে কয়েদিদের ক্ষোভের মুখে সাবেক ওসি  প্রদীপ

সিনহা হত্যা মামলায় চার আসামিকে জেলগেটে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু
কারাগারে কয়েদিদের ক্ষোভের মুখে সাবেক ওসি প্রদীপ

কড়া নজর প্রতিবেদনঃ
কক্সবাজারে সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ হত্যা মামলায় অভিযুক্ত আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে র‌্যাব। শনিবার (৮ আগস্ট) দুপুর ২টার পর থেকে কক্সবাজার জেলা কারাগারের ফটকে দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর হওয়া ৪জনকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে র‌্যাব-১৫ এর তদন্ত দল। এছাড়া সাত দিন করে রিমান্ডে নেওয়া ৩ আসামি টেকনাফ বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির বরখাস্ত হওয়া ইন্সপেক্টর লিয়াকত আলী, বরখাস্ত টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ এবং এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিতকে আগামীকাল রবিবার (৯ আগস্ট) র‌্যাব-১৫ এর হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু হবে।

কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর উপ অধিনায়ক মেজর মেহেদী হাসান এ তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানিয়েছেন, ‘সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ তদন্তের স্বার্থে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে ঘটনার মূল উদ্ঘাটনের চেষ্টা করা হবে।’

কক্সবাজার জেলা কারাগারের জেল সুপার মোকাম্মেল হোসেন জানিয়েছেন, শনিবার (৮ আগস্ট) দুপুর দেড়টার দিকে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত থেকে মেজর সিনহা হত্যা মামলার রিমান্ডের আদেশ প্রাপ্ত ৭ আসামির ব্যাপারে প্রয়োজনীয় নথিপত্র জেলা কারাগারে পৌঁছেছে। ফলে কারা ফটকে র‌্যাব সদস্যরা চার আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেছে। আগামীকাল রবিবার ৭ দিনের রিমান্ডের আদেশপ্রাপ্ত আসামিদের র‌্যাব হেফাজতে নিয়ে যাওয়ার কথা রয়েছে।

গত ৩১ জুলাই (শুক্রবার) রাতে টেকনাফ বাহারছড়া চেকপোস্টে তল্লাশির সময় পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। ৫ আগস্ট নিহত সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস বাদী হয়ে কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ইন্সপেক্টর লিয়াকত, ওসি প্রদীপ কুমার দাশসহ ৯জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। ৬ আগস্ট বরখাস্ত ওসি প্রদীপসহ ৭ আসামি কক্সবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। মামলার শুনানিতে র‌্যাবের পক্ষে প্রত্যেক আসামির ১০দিন করে রিমান্ডের আবেদন করলে আদালতের বিচারক ইন্সপেক্টর লিয়াকত, ওসি প্রদীপ এবং এসআই নন্দ দুলাল রক্ষিতকে ৭দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বাকি ৪জনকে কারাফটকে ২দিন করে জিজ্ঞাসাবাদের আদেশ দেন। এছাড়াও এ মামলায় পলাতক থাকা অপর দুই আসামির বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত।

কারাগারে কয়েদিদের ক্ষোভের মুখে প্রদীপ
কক্সবাজারের কারাগারে থাকা কয়েদিদের মধ্যে অনেকেই রয়েছেন টেকনাফ থানার বিতর্কিত ওসি প্রদীপের করা মামলার আসামি। সেই প্রদীপ তাঁদের সঙ্গী হতে চলেছেন বলে বৃহস্পতিবার দুপুরে কারাগারের ভেতর খবর চাউর হলে ওই কয়েদিরা ক্ষোভ নিয়ে অপেক্ষায় থাকেন। শত শত কয়েদি অধীর অপেক্ষায় ছিলেন প্রদীপের কারাগারে ঢোকার দৃশ্যটি একটু হলেও অবলোকন করতে। কিন্তু তাঁদের সেই ইচ্ছা পূরণ হয়নি আদালতের কার্যক্রম সারতে দেরি হওয়ার কারণে। রাত ১০টার পরই আদালত থেকে ওসি প্রদীপ, পরিদর্শক লিয়াকতসহ সাত পুলিশ আসামিকে কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। ততক্ষণে নিয়মানুযায়ী কারাগারের সব ওয়ার্ড বন্ধ হয়ে গিয়েছিল।

বন্দিদের মধ্যে ক্ষোভ লক্ষ করে কারা কর্তৃপক্ষ ওসি প্রদীপ, পরিদর্শক লিয়াকতসহ সাত আসামিকে আলাদাভাবে রাখার ব্যবস্থা করেছেন। এ সত্ত্বেও গতকাল সকাল থেকেই বন্দিরা ওসি প্রদীপের নাম ধরে চিৎকার করে নানা কথা বলেন। পরিস্থিতি খারাপ হওয়ার আশঙ্কায় সাত আসামিকে সকাল থেকে ওয়ার্ডের বাইরে বের হওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়নি। বন্দিদের সঙ্গে নিয়মমাফিক দেখা করা তাঁদের স্বজনদের সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। তবে কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক মোকাম্মেল হোসেন বলেছেন, কারাভ্যন্তরে কোনো সমস্যা নেই, সব ঠিকঠাক রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *