কড়ানজর
  • October 16, 2021
  • Last Update October 1, 2021 6:00 pm
  • গাজীপুর

মেয়েকে বুকে ঝুলিয়ে ক্লাস নিচ্ছেন মা

মেয়েকে বুকে ঝুলিয়ে ক্লাস নিচ্ছেন মা

কড়া নজর প্রতিবেদকঃ

বান্দরবানের আলীকদমে চমপট পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক দুই মেয়ের মা ডানা ত্রিপুরা। বড় মেয়ে রেনেসাঁস যাপ্রি ত্রিপুরার বয়স ৩ বছর এবং ছোট মেয়ে আলেক্সিস সাঁপ্রি ত্রিপুরার বয়স সাত মাস। স্বামী আব্রাহাম ত্রিপুরা আর দুই মেয়েকে নিয়েই ডানার সংসার।

দুই মেয়ে, বিশেষ করে ছোট মেয়েকে সঙ্গে নিয়েই স্কুলে যেতে হয় ডানাকে। ঘুমে থাকলে কাপড়ে বেঁধে মেয়েকে বুকের কাছে ঝুলিয়ে রাখেন। অথবা স্কুলের যে শিক্ষকের ক্লাস থাকে না, সেই শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে রেখে ক্লাসে যান ডানা। অনেক সময় শিক্ষকদের রুমে ফ্লোরে ঘুম পাড়িয়ে রাখেন। এভাবেই সকাল নয়টা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত স্কুলের বিভিন্ন দায়িত্ব পালন করেন এই মা।

মেয়েকে কোলে নিয়ে ক্লাস নিচ্ছেন—এমন একটি ছবি নিজের ফেসবুকে পোস্ট করে ডানা লিখেছেন, ‘মা কেবল মা…’। তাঁর এই পোস্ট নিয়ে ফেসবুকে বেশ আলোচনা হয়। সন্তানের জন্য মায়েরা কীভাবে যেকোনো পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন, তা তুলে ধরার চেষ্টা করেন অনেকে। ডানা ত্রিপুরার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন তাঁরা।

ডানা ত্রিপুরা গণমাধ্যমে জানান, ‘কোনো কিছু ভেবে ছবি পোস্ট করিনি। আমরা মায়েরা বাচ্চা পালতে পারি, একইভাবে পেশাগত দায়িত্বও পালন করতে পারি। আর পাহাড়ে জন্ম যে নারীদের, তাঁরা বাচ্চা কোলে নিয়ে এর চেয়েও কঠিন কঠিন কাজ করতে পারেন। আমাকে আমার স্কুলের প্রধান শিক্ষক থেকে শুরু করে অন্য শিক্ষকেরাও সার্বিক সহায়তা করছেন। অন্য নারী শিক্ষকেরাও প্রয়োজন হলে বাচ্চাকে সঙ্গে আনেন। তবে এত ছোট বাচ্চা এখন আমারই আছে।’

ডানা জানালেন, তাঁর বাসা থেকে স্কুলের দূরত্ব হাঁটাপথে পাঁচ মিনিট লাগে। বাসায় মেয়েকে দেখভাল করবেন তেমন কেউ নেই। দীর্ঘ সময়, তাই সন্তানের নিরাপত্তার কথাও ভাবতে হয়। ব্যবসায়ী স্বামী একসঙ্গে দুই মেয়েকে সামলাতে পারেন না। তাই হয় বড়, নাহয় ছোট মেয়—একজনকে সঙ্গে রাখতেই হয়। এলাকায় শিশু দিবাযত্ন কেন্দ্র থাকলে তাঁর মতো কর্মজীবী নারীদের সুবিধা হতো বলে মনে করেন ডানা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *