কড়ানজর
  • September 20, 2021
  • Last Update September 20, 2021 2:51 am
  • গাজীপুর

জিয়ার সমাধি সরিয়ে ফেলা হবে: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী চন্দ্রিমায় জিয়া নাই: প্রধানমন্ত্রী

জিয়ার সমাধি সরিয়ে ফেলা হবে: মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী              চন্দ্রিমায় জিয়া নাই: প্রধানমন্ত্রী

কড়া নজর প্রতিবেদকঃ
বৃহস্পতিবার (২৬ আগস্ট) জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় অংশ নিয়ে এমন মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। এতে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
বিএনপির মারামারি ধস্তাধস্তির অভ্যাস এখনো যায়নি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, জিয়াউর রহমান কোথায় যুদ্ধ করেছে, এমন নজির নাই। তিনি অস্ত্রহাতে নিয়ে যুদ্ধও করে নাই। দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল বলে নেতৃত্বে ছিল। কিন্তু যুদ্ধ লাগলেই দূরে থাকতো। তাছাড়া চন্দ্রিমা উদ্যানেও জিয়ার লাশ নেই।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি জানে না সেখানে (চন্দ্রিমা উদ্যানে) জিয়া নাই, জিয়ার লাশ নাই? তাহলে এতো নাটক করে কেন? খালেদা জিয়া বা তারেক জিয়া কি কখনো তার লাশ দেখেছে? ওখানে একটা বাক্স নিয়ে এসেছিল। সেখানে গিয়ে মারামারি ধস্তাধস্তি কেন? মারামারি ধস্তাধস্তির অভ্যাস তাদের এখনো যায়নি।
তিনি বলেন, জিয়াউর রহমান সোয়াত জাহাজ থেকে অস্ত্র খালাস করতে গিয়েছিল। জনগণ তাকে ঘেরাও করে আটকও করে। তাকে ধরে এনে স্বাধীনতার ঘোষণাপাঠ করানো হয়। প্রথমদিকে অনেক আপত্তি ছিল তার। জনগণের চাপে পাঠ করেছিল।


আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্টের ঘাতক দল বাংলাদেশকে পাকিস্তানি কায়দার রাষ্ট্র বানাতে চেয়েছিল, কিন্তু তারা পারেনি।
তিনি আরো বলেন, জিয়া দেশের স্বাধীনতা ও অস্তিত্বে কখনও বিশ্বাস করতেন না। তাকে ধরে এনে মুক্তিযুদ্ধের ঘোষণাপত্র পাঠ করানো হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়ার পরও জিয়াউর রহমান পাকিস্তানি বাহিনীর সদস্য হিসেবে কাজ করেছেন।


এদিকে চন্দ্রিমা উদ্যান থেকে জিয়াউর রহমানের সমাধি সরিয়ে নেওয়া হবে বলে মন্তব্য করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।
বৃহস্পতিবার (২৬ আগস্ট) দুপুরে গাজীপুর সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য শেষে সাংবাদিকদের তিনি এ কথা বলেন।
আ ক ম মোজাম্মেল হক বলেন, ‘চন্দ্রিমা উদ্যানের মাজারে জিয়াউর রহমানের লাশ নেই। তাকে ব্রাশফায়ার করে হত্যার পর মৃতদেহ পুড়িয়ে ফেলা হয়েছে। জিয়াউর রহমানের লাশ থাকলে ডিএনএ টেস্ট করে প্রমাণ করুক বিএনপি।’

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *