কড়ানজর
  • October 16, 2021
  • Last Update October 1, 2021 6:00 pm
  • গাজীপুর

গাজীপুরে ধামাকা’র চেয়ারম্যানসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা

গাজীপুরে ধামাকা’র চেয়ারম্যানসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা

কড়া নজর প্রতিবেদকঃ

বৃহস্পতিবার (২৩ সেপ্টেম্বর) গাজীপুরের টঙ্গীতে প্রতারণার অভিযোগে “ধামাকা শপিং ডটকমের” চেয়ারম্যান ও পরিচালকসহ ১১ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেছেন এক ব্যবসায়ী। 

রবিবার (২৬ সেপ্টেম্বর) মামলার সত্যতা নিশ্চিত করেন টঙ্গী পশ্চিম থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ আলম।

শামীম খান নামে ওই ব্যবসায়ী টঙ্গী পশ্চিম থানার উত্তর (আউচপাড়া) এলাকার বাসিন্দা এবং পোশাক কারখানার পার্টস ব্যবসায়ী। 

মামলার আসামিরা হল- ধামাকা শপিং ডটকমের চেয়ারম্যান ডা. এম আলী ওরফে মোজতবা আলী, ভাইস প্রেসিডেন্ট ইব্রাহীম স্বপন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এস এম ডি জসিম উদ্দিন চিশ্তী, উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক নিরোধ বারান রয়, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সিরাজুল ইসলাম রানা, হিসাব বিভাগের সহকারী মহা-ব্যবস্থাপক (এজিএম) সাফোয়ান আহমেদ, প্রধান ব্যবসা কর্মকর্তা ডি এম ডি দেবকর দে শুভ, নাজিম উদ্দিন আসিফ (২৮), উপ-ব্যবস্থাপক (ডেপুটি ম্যানেজার) আমিরুল হোসাইন, আসিফ চিশতী এবং সিস্টেম ক্যাটাগরি হেড ইমতিয়াজ হাসান।

মামলার বাদী ব্যাবসায়ী শামীম খান জানান, গত ২০ মার্চ অনলাইনে ইনভ্যারিয়েন্ট টেলিকম বাংলাদেশ লিমিটেড পরিচালিত ধামাকা শপিং ডটকমের ফেসবুক পেজে বিভিন্ন ভার্চুয়াল সিগনেচার কার্ডের মাধ্যমে পণ্য কেনার অফার দেয়। অনলাইনে অফারটি দেখে ওই প্রতিষ্ঠানের হেল্প লাইনে যোগাযোগ করেন তিনি। পরে তাকে জানানো হয়, পণ্য অর্ডার করলে ৪৫ দিনের মধ্যে পণ্য সরবরাহ করা হবে। সে অনুযায়ী ধামাকা শপিং ডটকমকে ১১ লাখ ৫৫ হাজার টাকা পরিশোধ করেন। প্রতিষ্ঠানটি তার অর্ডার কনফার্ম করে ও কনফার্ম ইনভয়েস জিমেইল আইডিতে পাঠালেও প্রতিষ্ঠান থেকে নির্ধারিত ৪৫ দিনেও পণ্য সরবরাহ করেনি। ৫০ দিন পর হেল্প লাইনে যোগাযোগ করলে অপেক্ষা করতে বলে।

তিনি আরও বলেন, একমাস অপেক্ষা করার পর তাদের প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (ম্যানেজিং ডিরেক্টর) এবং পরিচালক (অপারেশন) কর্তৃক স্বাক্ষরিত সাউথ ইস্ট ব্যাংকের মাধ্যমে ১১ লাখ ৫৫ হাজার টাকার দুইটি চেক দেওয়া হয়। ওই চেক নিয়ে টাকা তুলতে গেলে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ জানায় তাদের হিসাব (একাউন্টে) কোনো টাকা জমা নেই। গত ৫ আগস্ট প্রতিষ্ঠানের সিও মামলার ৩নং আসামি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সিরাজুল ইসলাম রানার কাছে যাওয়ার পর তিনি টাকা না দিয়ে তাকে হুমকি দেন। পরে ৫ সেপ্টেম্বর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে অফিসে গিয়ে দেখেন অফিস তালাবন্ধ। তিনি বুঝতে পারেন তার সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। তাই টাকা পরিশোধের ইনভয়েজ, ব্যাংকের চেকের ফটোকপিসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সংগ্রহ করে তিনি তাদের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগে এ মামলা দায়ের করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *