কড়ানজর
  • September 28, 2021
  • Last Update September 28, 2021 11:09 am
  • গাজীপুর

কাবুল বিমানবন্দরে আত্মঘাতি বোমা হামলায় ৬০জন নিহত

কাবুল বিমানবন্দরে আত্মঘাতি বোমা হামলায় ৬০জন নিহত

কড়া নজর প্রতিবেদক ঃ
কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে দুইটি আত্মঘাতি বোমা হামলা হয়েছে। এতে অন্তত ৬০ ব্যক্তি প্রাণ হারিয়েছে। এর মধ্যে ১৩ জন মার্কিন সৈন্য। হামলায় অন্তত ১৪০ জন গুরুতর আহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে নারী ও শিশু রয়েছে বলে তালেবানের একজন কর্মকর্তা বলেছেন। নিহতদের মধ্যে আমেরিকা ছাড়াও‘বিদেশি সৈন্য’ রয়েছে। আফগান টিভি টোলো নিউজে আহতদের হাসপাতালে নেয়ার ছবি প্রচার হয়েছে।
বিমানবন্দরের অ্যাবি গেট যেখানে মার্কিন এবং ব্রিটিশ সৈন্যরা অবস্থান নিয়ে হাজার হাজার মানুষকে আফগানিস্তান থেকে সরিয়ে নেয়ার প্রচেষ্টা চালাচ্ছিল তার ঠিক বাইরে এই বিস্ফোরণ ঘটে।
একজন প্রত্যক্ষদর্শী এক সাংবাদিককে জানিয়েছেন, যে বোমাটি ফেটেছে তা ছিল ‘খুবই শক্তিশালী।’ প্রথম হামলার পর দ্বিতীয় আরেকটি বিস্ফোরণ ও গোলাগুলির শব্দ শোনা গেছে।
রয়টার্স বার্তা সংস্থা একটি ভিডিও ফুটেজ প্রকাশ করেছে তাতে এই লোকটি বলছে, বিস্ফোরণের সময় সেখানে অন্তত চারশো থেকে পাঁচশো লোক উপস্থিত ছিল। বিস্ফোরণের পর যেসব ভিডিও এবং ছবি প্রকাশিত হয়েছে তাতে লাশের ওপর লাশ পড়ে থাকতে দেখা গেছে। মৃতের সংখ্যা বাড়বে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা মনে করছেন।
পেন্টাগনের একজন মুখপাত্র স্বীকার করেছেন যে বেশ ক’জন এতে নিহত হয়েছে। পেন্টাগনের মুখপাত্র বলছেন, নিহতদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকসহ বেশ কিছু বেসামরিক মানুষ রয়েছেন। একটি ‘জটিল হামলা’র জেরে এসব প্রাণহানি ঘটেছে বলে তিনি বলছেন।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনকে এই বিস্ফোরণ সম্পর্কে জানানো হয়েছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স খবর দিচ্ছে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট যখন আফগানিস্তান পরিস্থিতি নিয়ে তার নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করছিলেন তখন তাকে কাবুল বিমানবন্দরের এই হামলা সম্পর্কে খবর দেয়া হয়।এই ঘটনার পর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তার নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের সাথে জরুরি বৈঠক করতে যাচ্ছেন।
‘আত্মঘাতীর জনক তালেবান’ নিজেই শিকার
তালেবান ধর্মান্ধ শিশু-নারীকে ঢাল হিসাবে ব্যবহার করে আফগানিস্তানসহ বিশে^র বিভিন্ন দেশে আত্মঘাতি হামলা রপ্তানিও করেছে। তামিলদের কয়েকটি হামলা ঃআফগানিস্তানের রাজধানী কাবুলের একটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বাইরে আত্মঘাতী বোমা হামলায় অন্তত ১৮ জন মারা গেছে এবং বহু আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। শিয়া মুসলিম অধ্যুষিত দাশত্-এ-বারচি এলাকায় সাধারণত শত শত শিক্ষার্থী থাকে। প্রসঙ্গতঃ শিয়া রাষ্ট্র ইরানের সঙ্গে তালেবানের এখন চরম দোস্তি। ২০১৮ সালের অগাস্টে একটি শিক্ষা কেন্দ্রে ক্লাস চলাকালীন সময় আত্মঘাতী বোমা হামলায় ৪৮ জন মারা যায়, যাদের অধিকাংশই ছিল বয়সে কিশোর। এবছরের মে মাসে কাবুলের একটি হাসপাতালের ম্যাটার্নিটি ওয়ার্ডে বন্দুকধারীর হামলায় নবজাতকসহ ২৪ জন নারী ও শিশু মারা যায়। এই সপ্তাহের শুরুতেও উত্তর আফগানিস্তানের তাকহার প্রদেশের একটি ধর্মীয় স্কুলে বিমান হামলায় ১১জন শিশু মারা যায়।
সম্ভাব্য হামলাকারী আইএসকেপি !
কাবুল বিমান বন্দরে আত্মঘাতি বোমা হামলা হতে পারে বলে পশ্চিমা দেশগুলোর গোয়েন্দা সংস্থা সতর্ক করে আসছিল। গত কয়েক দিন ধরে ইসলামিক স্টেট অফ খোরাসান প্রভিন্স (আইএসকেপি) হামলা করতে পারে বলে গোষ্ঠীটির নাম রাজনীতিক এবং নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের মুখে মুখে ফিরছে। শুধু গত বছরই আইএসকেপি আফগানিস্তানে ২৪টি হামলা পরিচালনা করেছে।
তারা ২০১৮ সালে ইরানের মধ্যেও একটি হামলা চালায়। সাংগঠনিক দিক থেকে আইএসকেপি শুরুতে আফগানিস্তান এবং পাকিস্তানকে নিয়ে গঠিত হলেও ২০১৯ সালের মে মাসে ইসলামিক স্টেট ‘পাকিস্তান প্রদেশ’ নামে স্বতন্ত্র একটি গোষ্ঠীর নাম ঘোষণা করে।

#

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *