কড়ানজর
  • October 16, 2021
  • Last Update October 1, 2021 6:00 pm
  • গাজীপুর

‘আমার পোশাকে হাত দিও না’ আফগান নারীদের সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদ


কড়া নজর প্রতিবেদক ঃ
তালিবানের বোরখা ফতেয়ার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ শুরু করলেন আফগান মহিলারা। শরীর ঢাকতে বোরখা বা নিকাবের প্রয়োজন হয় না। তার জন্য ঐতিহ্যশালী আফগান পোশাকই যথেষ্ঠ। তালিবানের বোরখা ফতেয়ার বিরুদ্ধে ঐতিহ্যবাহী আফগান পোশাক পরে ক্যামেরার সামনে আসতে শুরু করেন মহিলারা।
রঙবেরঙয়ের ওই পোশাকে প্রত্যেকের হাত থেকে পায়ের গোড়ালি পর্যন্ত ঢাকা পড়ে যায়। আফগানিস্তানের ঐতিহ্যবাহী পোশাক পরে ক্যামেরার সামনে দাঁড়িয়ে পোজ দিতে শুরু করেন আফগান মহিলারা। আফগানিস্তানের চিকিৎসক বাহার জালালি থেকে শুরু করে সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে জড়িত তাহমিনা আজিজ, প্রায় প্রত্যেকেই নিজেদেরকে আফগান ঐতিহ্যবাহী পোশাকে সাজিয়ে অভিনব প্রতিবাদ শুরু করেন।
সোশ্যাল মিডিয়ায় এই প্রতিবাদ শুরু করেন ড. বাহার জালালি।
আফগানিস্তানে ছাত্রীদের পোশাক নিয়ে তালেবান যে নতুন কঠোর বিধিনিষেধ জারি করেছে, তার বিরুদ্ধে নারীরা অনলাইনে প্রতিবাদ শুরু করেছেন।

#DoNotTouchMyClothes এবং # AfghanistanCulture হ্যাশট্যাগের এই প্রতিবাদে অনেকে অনলাইনে তাদের বর্ণিল ঐতিহ্যবাহী পোশাক শেয়ার করছেন। বিবিসির সোদাবা হায়দার কথা বলেছেন এমন কয়েকজন নারীর সঙ্গে যারা সোশ্যাল মিডিয়ায় এই প্রতিবাদ শুরু করেন।

আপনি যদি গুগলে ‘ঐতিহ্যবাহী আফগান পোশাক’ টাইপ করেন, নানা রঙের ঐতিহ্যবাহী আফগান পোশাক দেখে আপনি আপ্লুত হয়ে যাবেন।

প্রতিটি পোশাকই অনন্য। হাতে তৈরি নকশা এবং ভারী ডিজাইনের পোশাকের বুকের কাছে ছোট ছোট কাঁচের আয়না, লম্বা স্কার্ট।

আফগানিস্তানের জাতীয় নাচ ‘আতান’ এ অংশ নেয়ার জন্য একেবারে লাগসই পোশাক। অনেক নারী নকশা করা টুপি পরেন, অন্যরা ভারী টিকলি। আফগানিস্তানের বিভিন্ন অঞ্চলের নারীদের মাথায় জাতিভেদে দেখা যাবে বিভিন্ন রকমের টুপি বা অলংকার।

গত বিশ বছর ধরে যে সাধারণ আফগান মেয়েরা বিশ্ববিদ্যালয়ে বা কর্মস্থলে গেছে, এই পোশাকেরই একটু সাদামাটা সংস্করণ তাদের পরতে দেখা গেছে। অনেক সময় তারা হয়তো পাজামার পরিবর্তে জিন্স পরেছেন, কারও কারও ওড়না হয়তো কাঁধের পরিবর্তে জড়ানো ছিল মাথার ওপরে।

কিন্তু গত সপ্তাহান্তে কাবুলে ‘তালেবানের শাসনের’ সমর্থনে যে নারীরা একটি সমাবেশে যোগ দেন, সেখানে দেখা গেছে একদম উল্টো ছবি। এই নারীরা দীর্ঘ কালো বোরকায় আবৃত ছিলেন, তাদের মুখ এবং হাত ছিল ঢাকা।

আফগানিস্তানের ঐতিহ্যাবাহী পোশাকে সেজে সেখানকার মহিলারা যখন একের পর এক ছবি শেয়ার করেন, তা মুহূর্তে ভাইরাল হয়ে যায়। তালিবানি ফতেয়ার বিরুদ্ধে আফগান মহিলাদের পোশাক বিদ্রোহের ছবি উঠে আসতে শুরু করে প্রায় গোটা বিশ্বের সামনে।

তালিবানি ফতেয়ার মুখে দাঁড়িয়ে নিজেদের ঐতিহ্য, সংস্কৃতি এবং দাবিকে সামনে রেখে আফগান মহিলারা যে প্রতিবাদ শুরু করেন, তা দেখে তাঁদের প্রশংসায় ভরিয়ে দেয় গোটা বিশ্ব।

আফগানিস্তান তালিবান বোরখা একটি ভিডিওতে তালেবানের পক্ষে সমাবেশে যোগ দেয়া নারীদের বলতে শোনা যায়, যেসব আফগান নারী মুখে প্রসাধনী মাখেন এবং আধুনিক পোশাক পরেন, তারা ‘মুসলিম আফগান নারীদের প্রতিনিধিত্ব করে না।’

তালেবান যে ধরণের কঠোর ইসলামী অনুশাসনের পক্ষে, তার প্রতি ইঙ্গিত করে তারা আরও বলেছেন, ‘আমরা এমন নারী অধিকার চাই না, যা বিদেশ থেকে আমদানি করা এবং ইসলামী শরিয়ার সঙ্গে বিরোধপূর্ণ।’ তবে বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে আফগান নারীরা সাথে সাথেই এর তীব্র প্রতিবাদ জানিয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *